দেশে উন্নয়নের নামে লুটপাট চলছে: খালেদা জিয়া
বৃহস্পতিবার ২৩ নভেম্বর ২০১৭, ০৮:৫৭:৪০

প্রকাশিত : রবিবার, ১২ নভেম্বর ২০১৭ ০৮:৩৯:০০ অপরাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

দেশে উন্নয়নের নামে লুটপাট চলছে: খালেদা জিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক:

দেশে উন্নয়নের নামে লুটপাট চলছে উল্লেখ করে বিএনপি চেয়ারপার্সন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া বলেন, সরকার কথায় কথায় উন্নয়নের কথা বলে। উন্নয়নের নামে লুটপাট চলছে। ইউরোপ, আমেরিকার চেয়ে রাস্তা ব্রিজ বানানোর জন্য চারগুণ বেশি ব্যয় হচ্ছে। চলছে নানারকম ধাপ্পাবাজি।

রোববার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে আয়োজিত জনসমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। 

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ব্যাপারে বেগম জিয়া বলেন, আমরা ক্ষমতায় গেলে দলমত নির্বিশেষে দক্ষতা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে নিয়োগ ও পদোন্নতি দেয়া হবে। সরকারি চাকরি যারা করেন তাদের ভয় পাওয়ার কিছু নেই, আমরা জানি ও বুঝি তারা সরকারের হুকুম পালন করেন মাত্র। তাই তাদের ওপর কোনো প্রতিহিংসা দেখানো হবে না। 
 
অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন করা নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব মন্তব্য করে বিএনপি চেয়ারপার্সন বলেন, নির্বাচন নিয়ে ইসি সরকারের কোনো অন্যায়কে প্রশয় দিতে পারে না। আগামী নির্বাচন নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে হতে হবে, ইভিএম বন্ধ করতে হবে, ম্যাজিস্ট্রেসি পাওয়ার দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে। সেনাবাহিনীকে ক্ষমতা দিতে হবে যাতে তারা কাজ করতে পারে। সেনাবাহিনী না দেওয়া হলে ক্ষমতাসীন দল কেন্দ্র দখল করে মানুষের উপর অত্যাচার চালাবে। ভোট চুরি করবে। হাসিনার অধীনে কোন নির্বাচনে জনগণ অংশ নেবে না।

সরকারের এমপি-মন্ত্রীরা জনগণের রক্ত চুষে টাকা চুরি করে বিদেশে পাচার করেছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গেলেই শেয়ার বাজার লুট হয়। এর আগে কখনো শুনিনি সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশের মানুষের টাকা আছে। এই সরকারের এমপি-মন্ত্রীরা জনগণের রক্ত চুষে টাকা চুরি করে বিদেশে পাচার করেছেন।

তিনি আরও বলেন, শুধু এক বছরে এই সংখ্যা বেড়েছে প্রায় পাঁচ হাজার কোটি টাকা। এছাড়া গত ১০ বছরে (২০০৮ - ২০১৭) আওয়ামী লীগ সাড়ে চার লাখ কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে। 
 
জাতীয় ঐক্যের মাধ্যমে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানের আহ্বান জানানোর পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর উদ্দেশ্যে সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গাদের তাদের দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য চাপ দিন। শুধু ফেরত পাঠালে হবে না, অত্যাচার নিপীড়ন যাতে না করা হয় সে ব্যবস্থা করতে হবে। রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক, ওই দেশের নাগরিকত্ব দিতে হবে। আমরা মানবিকতার কারণে আশ্রয় দিয়েছি। এভাবে বেশিদিন চলতে পারে না। 

জনসভায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের সিনিয়র নেতারা বক্তব্য দেন।

সংবাদটি পঠিতঃ ৩১২ বার